আইটি ফ্রিল্যান্সারদের ৪% ইন্টেনসিভ (প্রণোদনা) এবং কিছু কথা।

আইটি ফ্রিল্যান্সারদের ৪% ইন্টেনসিভের বিষয়ে চূড়ান্ত পর্যায়ের কাজ চলছে, আশা করি খুব শীঘ্রই আইটি ফ্রিল্যান্সার ভাইয়েরা এ বিষয়ে ব্যাংকে গিয়ে ক্ল্যাম করতে পারবেন। সকলের প্রতি একটাই অনুরোধ থাকবে আপনারা অধৈর্য হবেন না এবং কখনো বাজে মন্তব্য বা মনের সংকীর্ণতা প্রকাশ করা উচিত নয়।

কিন্তু আজ একটি বিষয়ে কথা বলতে চাই, আমিও যখন আইটি ফ্রিল্যান্সিং নিয়ে কাজ শুরু করি তখন আমিও আমাদের বিভিন্ন দাবি-দাওয়া বা সমস্যার কথা অনুধাবন করি। অনেকের মতই আমার মনেও কিছু নেতিবাচক মনোভাব আসে, যা মনের মধ্যেই রেখেছিলাম কিন্তু এর বিপরীতে ভাবতে শুরু করেছিলাম কেন এমনটা হচ্ছে, এর থেকে প্রতিকারের উপায় কি? কিভাবে আমরা আমাদের আইটি ফ্রিল্যান্সিংয়ের প্রতিবন্ধকতাগুলো দূর করতে পারি।

হয়তো আমরা অনেকেই সমস্যা নিয়ে ভাবি কিন্তু সমস্যার সমাধানের জন্য এগিয়ে আসি না। হাতে গোনা কয়েকজন হয়তো সমস্যা সমাধানের জন্য নিঃস্বার্থভাবে এগিয়ে আসে কিন্তু অনেকের নেতিবাচক বা বাজে মন্তব্যের জন্য আবার চুপসে যায়। যারা নিঃস্বার্থভাবে এগিয়ে আসে, কেবল তারাই জানে তাদের কাজের ফাঁকে সময় ম্যানেজ করা কতটা কষ্ট সাধ্য।

আমরা যদি আমাদের নেতিবাচক চিন্তাভাবনাগুলো দূর না করি, তাহলে কখনো এই সমাজের পরিবর্তন ঘটবে না। আপনি তাকিয়ে দেখেন নিজের দিকে, নিজের পরিবারের দিকে, আমরা যে নেতিবাচক চিন্তা ভাবনাগুলো করছি তা আমাদের নিষ্পাপ সন্তানের মনের মধ্যে গেঁথে উঠছে কিনা! যদি তাই হয়, তাহলে আমাদের পরবর্তী প্রজন্মও এই নেতিবাচক মনোভাব নিয়ে বেড়ে উঠবে এবং এটা চক্রাকারে ঘুরতে থাকবে আর এই সমাজের পরিবর্তনও কখনো হবে না।

কিন্তু কেন? আমরা কি চাই না যারা কাজ করতে করতে অভিজ্ঞ হয়েছেন এবং যারা কেবলমাত্র শুরু করেছেন তাদেরকে একটু উপরের দিকে টেনে তুলতে? আমাদের মধ্যে যারা কাজ করতে করতে অভিজ্ঞ হয়েছেন তাঁরা হয়তো তাদের কাজ করার সময় যে সমস্যাগুলো থাকে, তা হয়তো কোনো না কোনো ভাবে কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করছেন বা পথ খুঁজে পেয়েছেন কিন্তু একজন নতুন কিভাবে পথ পাবে? অতএব আমাদের আইটি ফ্রিল্যান্সিংয়ের এই প্রতিবন্ধকতাগুলো দূর করার জন্য সকলের সহযোগিতা একান্ত কাম্য এবং প্রয়োজন মনোভাব পরিবর্তনের।

পরিশেষে, আমাদের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের দুটি পংক্তির সাথে সুর মিলিয়ে বলতে চাই:
হয়নি সকালতাই বলে কি সকাল হবে না ?
আমরা যদি না জাগি মা কেমনে সকাল হবে?

আজ আপনি ছোট থেকে বড় হয়েছেন নিজের যোগ্যতায় বা কাজ করতে করতে বড় হয়েছেন কিন্তু এটাও মনে রাখতে হবে আপনার এই বেড়ে ওঠা কিন্তু এই দেশেরই মাটি, মা এবং সম্প্রীতির বন্ধনে। আর ভাবতে হবে নিজেদের এই অভিজ্ঞতা গুলো কিভাবে এ দেশের পরবর্তী প্রজন্মের সাথে শেয়ার করা যায়, তাদেরকে নতুনভাবে উদ্বুদ্ধ করা যায়, যেন নতুনরাও দেশের উন্নয়নে মুখ্য ভূমিকা রাখতে পারে।

পরিশেষে, যদি লেখাটি আপনার কোনো প্রকার উপকারে আসে তাহলে সকলের সঙ্গে শেয়ার করতে ভুলবেন না। দেশের জন্য এবং দেশকে ভালোবেসে কাজ করুন। কোনো প্রকার প্রশ্ন থাকলে কমেন্ট করুন, আমি যথাসাথ্য চেষ্টা করবো আপনার প্রশ্নের উত্তর বা আপনাকে সহযোগিতা করার জন্য।

আইটি ফ্রিল্যান্সারদের ৪% ইন্টেনসিভ (প্রণোদনা) এবং কিছু কথা।

Write a comment....

Scroll to top
error: Content is protected !!
%d bloggers like this: